যিনি সবার আদর্শ

শাহ আলম, চুয়াডাঙ্গা

করিমা খানমের জন্ম ১৯৫২ সালের ১৭ জানুয়ারি দামুড়হুদার কুড়ুলগাছিতে। সেই গ্রামে তখন স্কুল ছিল না। পড়াশোনা ছিল মক্তবনির্ভর। মেয়ের পছন্দে পাশের গ্রামের ধান্যঘরা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাক্-প্রাথমিকে ভর্তি করান বাবা শাহ মোহাম্মদ আবদুল করিম। সেখান থেকে পঞ্চম শ্রেণির চৌকাঠ পেরোন করিমা। তারপর ভর্তি হন বাড়ি থেকে সাত কিলোমিটার দূরের দর্শনা বালিকা বিদ্যালয়ে। সেখানে যেতে হতো গরুর গাড়িতে করে। রীতিমতো নিত্যদিনের যুদ্ধ! দশম শ্রেণিতে পড়ার সময় আলমডাঙ্গার খোন্দকার শামসুল হুদার সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়। পড়াশোনা ও চাকরির শর্তে রাজি হন করিমা। নতুন জীবন সামলে ঠিকই ম্যাট্রিকুলেশনে (বর্তমানের এসএসসি) উত্তীর্ণ হন তিনি। তারপর উচ্চমাধ্যমিক শেষ করেন আলমডাঙ্গা কলেজ থেকে। মজার বিষয় হলো, ১৯৯৫ সালে তিনি স্নাতক (পাস) সম্পন্ন করেন ছেলে তৌহিদের সঙ্গে।

১৯৭০ সালে আলমডাঙ্গা মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে চাকরিজীবন শুরু করেন করিমা। আর প্রধান শিক্ষক পদে দামুড়হুদা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগ দেন ২০০৪ সালে। ২০০৯ সালের ১৫ জানুয়ারি অবসরে যান তিনি। অবসরে যাওয়ার আগে তাঁর নেতৃত্বে দামুড়হুদা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পেয়েছে তিনবার বিভাগীয় সেরা ও ২০০৭ সালে দেশসেরা বিদ্যালয়ের পুরস্কার।

Categories সম্মাননা ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published.