শৈশব–কৈশোরের স্মৃতিতে ফিরে গিয়ে আপ্লুত শিক্ষকেরা

শৈশব–কৈশোরের স্মৃতিতে ফিরে গিয়ে আপ্লুত শিক্ষকেরা

তাঁরা নিজেরাও শিক্ষক। কিন্তু কিছুক্ষণের জন্য ফিরে গেলেন সেই ছাত্রজীবনে। স্মৃতি রোমন্থন করলেন সেই শৈশব-কৈশোরের আনন্দে ভরা দিনগুলোর। স্মৃতিচারণা করলেন প্রিয় শিক্ষকদের। আবেগে আপ্লুত হয়ে জানালেন স্কুলজীবনের দুষ্টুমি, শিক্ষকদের বকুনি আর ভালোবাসার কথা।

গতকাল সোমবার বিকেল সাড়ে চারটা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে মনোমুগ্ধকর এক সুধী সমাবেশে এসব স্মৃতিচারণা করেন শিক্ষকেরা। আর তা মুগ্ধ হয়ে শোনেন মিলনায়তন ভরা বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়-কলেজ ও স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সাহিত্য-সংস্কৃতি ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের প্রতিনিধিরা। প্রিয় শিক্ষক সম্মাননা ২০১৯ উপলক্ষে আয়োজন করা হয় এই সমাবেশ।

নির্ধারিত নিয়মে মনোনয়ন শেষে প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের ১০ জন শিক্ষককে দেওয়া হবে ‘আইপিডিসি-প্রথম আলো প্রিয় শিক্ষক সম্মাননা’। আর এর অংশ হিসেবেই গতকাল আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইপিডিসি এবং প্রথম আলোর উদ্যোগে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আগামী ৪ অক্টোবর নির্বাচিত প্রিয় শিক্ষকদের আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মাননা দেওয়া হবে। আড্ডা-গল্পে প্রত্যেকেই প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের কোনো না কোনো শিক্ষকের অবদানের কথা বলেন। আর সেসব শিক্ষককে সম্মাননা জানাতেই এ আয়োজন।

সিলেটে সুধী সমাবেশে প্রথম আলো ট্রাস্টের উদ্যোগে গড়া পদ্মাপাড়ের (রাজশাহীর চরখিদিরপুর) ‘আলোর পাঠশালা’ নিয়ে তৈরি করা একটি প্রামাণ্যচিত্র দেখানো হয়। প্রদর্শিত হয় ‘উচ্ছ্বাস’ শীর্ষক আইপিডিসির একটি প্রামাণ্যচিত্রও। শিক্ষক সম্মাননা নিয়ে নির্মিত একটি প্রামাণ্যচিত্রও প্রদর্শিত হয়।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শতাধিক শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। স্মৃতিচারণাকারী শিক্ষকদের মধ্যে রয়েছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আব্দুল আউয়াল বিশ্বাস, বর্ডার গার্ড পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. ফয়জুল হক, দ্য এইডেড হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. শমসের আলী প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *